নয় বছর পর উইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট জিতল বাংলাদেশ

0
153

সর্বশেষ ২০০৯ সালে উইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচে জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। নয় বছর পর আবার ক্যারিবিয়ানদের বধ করল টাইগাররা। সেবার জয়টি এসেছিল প্রতিপক্ষের মাঠে। এদিন চট্টগ্রামে উইন্ডিজের বিপক্ষে ৬৪ রানে জিতেছে টাইগাররা। এটাই ঘরের মাঠে তাদের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট জয়। ফলে দুই টেস্ট সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।

এদিন ইনিংসের শুরুতেই উইন্ডিজকে চেপে ধরে টাইগাররা। ৭৫ রানে তাদের ৮ উইকেট তুলে নিয়েছিল সাকিব-তাইজুলরা। কিন্তু এরপর সুনীল আমব্রিস ও জমোল আমব্রিস ৬৩ রানের দারুণ জুটিতে প্রতিরোধ গড়েন। তবে তা কেবল হারের ব্যবধানই কমিয়েছে। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আমব্রিসকে মুশফিকুর রহীমের তালুবন্দি করে টাইগারদের জয় নিশ্চিত করেন তাইজুল।

দারুণ বল করে ৩৩ রানের খরচায় ৬টি উইকেট তুলে নিয়েছেন তাইজুল। ২টি করে উইকেট পেয়েছেন সাকিব ও মেহেদী হাসান মিরাজ। উইন্ডিজের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৩ রানের ইনিংস খেলেন আমব্রিস। ৬২ বলে ৪টি চারে এ রান করেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৩২৪

দ্বিতীয় ইনিংস: ১২৫/১০ (৩৫.৫ ওভার) (ইমরুল ২, সৌম্য ১১, মুমিনুল ১২, মিঠুন ১৭, সাকিব ১, মুশফিক  ১৯, মিরাজ ১৮, মাহমুদউল্লাহ ৩১, নাঈম ৫, তাইজুল ১, মোস্তাফিজ ২*; রোচ ০/১১, ওয়ারিক্যান ২/৪৩, চেজ ৩/১৮, বিশু ৪/২৬, গ্যাব্রিয়েল ১/২৪)।

উইন্ডিজ প্রথম ইনিংস: ২৪৬

দ্বিতীয় ইনিংস: ১৩৯/ ১০ (লক্ষ্য ২০৪) (৩৫.২ ওভার) (ব্র্যাথওয়েট ৮, পাওয়েল ০, হোপ ৩, আম্রিস ৪৩, চেজ ০, হেটমায়ার ২৭, ডওরিচ ৫, বিশু ২, রোচ ১, ওয়ারিক্যান ৪১, গ্যাব্রিয়েল ০*; সাকিব ২/৩০, নাঈম ০/২৯, তাইজুল ৬/৩৩, মিরাজ ২/২৭, মোস্তাফিজ ০/১১)।

ফল: বাংলাদেশ ৬৪ রানে জয়ী।

ওয়ারিক্যানকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন মিরাজ

সুনীল আমব্রিসের সঙ্গে দারুণ এক জুটি গড়ে টাইগারদের ভয় ধরিয়ে দিয়েছিলেন জোমেল ওয়ারিক্যান। তবে দেরিতে হলেও এ জুটি ভাঙতে পেরেছে বাংলাদেশ। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে লেগে ঘোরাতে গিয়ে ঠিকভাবে লাগাতে পারেননি ওয়ারিক্যান। মিড উইকেটে কিছুটা পেছনের দিকে দৌড়ে দারুণ ক্যাচ লুফে নিয়েছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ৫৫ বলে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪১ রান করেছেন ওয়ারিক্যান। জয়ের জন্য এখনও উইন্ডিজের প্রয়োজন ৬৫ রান।

৩৫ ওভার শেষে ৯ উইকেটে ১৩৯ রান করেছেন উইন্ডিজ। ৪৩ রানে ব্যাট করছেন আমব্রিস। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন শ্যানন গ্যাব্রিয়েল।

আমব্রিস-ওয়ারিক্যান জুটিতে পঞ্চাশ

৭৫ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে একশত রানেই অলআউট হওয়ার শঙ্কায় পড়েছিল উইন্ডিজ। কিন্তু নবম উইকেটে জোমেল ওয়ারিক্যানের সঙ্গে সুনীল আমব্রিসের ব্যাটে সে শঙ্কা তো দূর হয়েছে উল্টো জয়ের স্বপ্ন দেখছে দলটি। এর মধ্যেই পঞ্চাশ রানের জুটি গড়েছেন এ দুই ব্যাটসম্যান। ৬৩ বলে এসেছে এ জুটির পঞ্চাশ রান।

৩৩  ওভার শেষে উইন্ডিজের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ১৩০ রান। ৩৯ রানে ব্যাট করছেন ওয়ারিক্যান। আমব্রিসের উইকেট আছেন ৩৬ রানে। জয়ের জন্য এখনও ৭৪ রান প্রয়োজন সফরকারীদের।

রিভিউ নিয়ে রোচকে ফিরিয়ে তাইজুলের পাঁচ

দারুণ ছন্দে আছেন তাইজুল ইসলাম। জিম্বাবুয়ে সিরিজে দুর্দান্ত বোলিংয়ের ধারা ধরে রেখেছেন উইন্ডিজের বিপক্ষেও। ক্যারিয়ারে সপ্তমবারের মতো পাঁচ উইকেট শিকার করলেন এ বাঁহাতি। কেমার রোচকে ফিরিয়েছেন এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে। তবে শুরুতে আউট দেননি আম্পায়ার। রিভিউ নিয়ে সফল হন এ স্পিনার। ৭ বলে ১ রান করেছেন রোচ।

২২ ওভার শেষে ৮ উইকেটে ৭৫ রান করেছে উইন্ডিজ। ২১ রানে ব্যাট করছেন সুনীল আমব্রিস। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন জোমেল ওয়ারিক্যান। জয়ের জন্য এখনও ১২৯ রান চাই সফরকারীদের।

বিশুকে ফেরালেন তাইজুল

ব্যাট চালাতে জানলেও প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যান নন দেবেন্দ্র বিশু। কিন্তু টাইগারদের স্পিন সামলে ২১টি বল খেলেছিলেন। সঙ্গ দিচ্ছিলেন অপর প্রান্তের শেষ বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান সুনীল আমব্রিসকে। তবে শেষ পর্যন্ত কুলিয়ে উঠতে পারেননি। তাইজুলের বল রক্ষণাত্মক ভাবে খেলতে গিয়ে লাইন মিস করে বোল্ড হয়ে গেছেন বিশু। ২১ বল ২ রান করেছেন এ ক্যারিবিয়ান।

উইন্ডিজের সংগ্রহ ২০ ওভার শেষে ৭ উইকেটে ৬৯ রান। ১৬ রানে ব্যাট করছেন আমব্রিস। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন কেমার রোচ। জয়ের জন্য এখনও উইন্ডিজের প্রয়োজন ১৩৫ রান।

ডরউইচকে ফেরালেন তাইজুল

আগের ইনিংসে দারুণ এক হার না মানা ইনিংস খেলেছিলেন শেন ডরউইচ। দ্বিতীয় ইনিংসেও তার কাছ থেকে এমন কিছুর প্রত্যাশা করেছিল উইন্ডিজ। কিন্তু তাতে বাধ সেধেছেন তাইজুল ইসলাম। তার এক ডেলিভারিতে তাকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেছেন এ বাঁহাতি। ফলে উইন্ডিজের লেজ বের করে এনেছে টাইগাররা। ১৪ বলে ৫ রান করেছেন ডরউইচ।

১৪ ওভার শেষে উইন্ডিজের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ৫১ রান। ৮ রানে ব্যাট করছেন সুনীল আমব্রিস। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন দেবেন্দ্র বিশু।

বিপদজনক হেটমায়ারকে ফেরালেন মিরাজ

উইকেটে নেমেই আগ্রাসী ব্যাট চালাতে থাকলেন শিমরন হেটমায়ার। টাইগারদের বুকে কাঁপন ধরিয়ে মাত্র ১৯ বলে ২৭ রান করেছিলেন তিনি। কিন্তু বড় ক্ষতি করার আগেই তাকে ফিরিয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। এগিয়ে গিয়ে লংঅফ সীমানার উপর দিয়ে ছক্কা মারা ছিল হেটমায়ারের লক্ষ্য তবে ঠিকভাবে না করতে পারায় ধরা পড়েন নাঈম হাসানের হাতে। প্রথম ইনিংসেও ৪৭ বলে ৬৩ রানের ইনিংস করেছিলেন এ ব্যাটসম্যান।

১১ ওভার শেষে উইন্ডিজের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৪৭ রান। ৭ রানে ব্যাট করছেন সুনীল আমব্রিস। নতুন ব্যাটসম্যান শেন ডরউইচ আছেন ২ রানে।

সাকিবের পর তাইজুলের জোড়া আঘাত

অধিনায়ক সাকিব আল হাসান শুরুতে জোড়া আঘাত করে টাইগারদের দারুণ সূচনা এনে দিয়েছিলেন। এরপর বল হাতে নিয়ে প্রথম ওভারেই উইন্ডিজ শিবিরে জোড়া ধাক্কা দিয়েছিলেন তাইজুল ইসলাম। রোস্টন চেজকেও এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেছেন তিনি। রিভিউ নিয়েছিলেন চেজ। তবে লাভ হয়। ৪ বল খেলে রানের খাতা খুলতে পারেননি এ ব্যাটসম্যান।

লাঞ্চের আগে ৫.৫ ওভার শেষে উইন্ডিজের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১১ রান। সুনীল আমব্রিস ০ রানে উইকেটে আছেন। জয়ের জন্য এখনও ১৯৩ রান প্রয়োজন ক্যারিবিয়ানদের।

ব্র্যাথওয়েটকে ফেরালেন তাইজুল

বল হাতে নিয়ে প্রথম বলেই উইকেট পেয়েছেন তাইজুল ইসলাম। ক্রেইগ ব্র্যথওয়েটকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেছেন এ বাঁহাতি। ২৩ বলে ৮ রান করেছেন ব্র্যাথওয়েট।

হোপকে ফিরিয়ে সাকিবের দ্বিতীয় আঘাত

শাই হএইচপিকে ফিরিয়ে উইন্ডিজ শিবিরে দ্বিতীয় আঘাত হেনেছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তার আর্ম বল রক্ষণাত্মক ঢঙেই খেলতে চেয়েছিলেন হোপ। তবে মিস করলে উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহীমের হাতে যাওয়ার আগে গ্লাভসে হালকা চুমু খেয়ে যায় বল। ফলে কটবিহাইন্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন হোপ। ৬ বলে ৩ রান করেছেন এ ব্যাটসম্যান।

৫ ওভার শেষে উইন্ডিজের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১১ রান। ৮ রানে ব্যাট করছেন ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন সুনীল আমব্রিস।

শুরুতেই পাওয়েলকে আউট করলেন সাকিব

২০৪ রানের লক্ষ্যে শুরুতে উইকেট নেওয়া খুবই জরুরী ছিল টাইগারদের। আর তাই এনে দিলেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। টেস্ট ক্যারিয়ারের ২০০ তম উইকেট তুলে নিয়ে ফিরিয়েছেন ওপেনার কাইরেন পাওয়েলকে।

সাকিবের বলে এগিয়ে গিয়ে শট করতে চেয়েছিলেন পাওয়েল। লাইন মিস করলে বল ধরে দ্রুত উইকেট ভাঙেন উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহীম। ফলে স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়েন পাওয়েল। কোন রান করতে পারেননি এ ক্যারিবিয়ান।

৩ ওভার শেষে উইন্ডিজের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৫ রান। ৫রানে ব্যাট করছেন ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন শাই হোপ।

উইন্ডিজকে ২০৪ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ

দিনের শুরুতেই দলের সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীমকে হারিয়ে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। তবে এরপর কিছুটা দায়িত্ব নিয়ে ব্যাট করেছিলেন মাহমুদউল্লাহ। তার ৩১ রানের মূল্যবান ইনিংসেই বাংলাদেশের লিড দুইশত পার করতে পারে। ফলে চট্টগ্রাম টেস্টে জয়ের জন্য উইন্ডিজকে ২০৪ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। মাত্র ১২৫ রানেই গুটিয়ে গেছে টাইগারদের দ্বিতীয় ইনিংস।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৩২৪

দ্বিতীয় ইনিংস: ১২৫/১০ (৩৫.৫ ওভার) (ইমরুল ২, সৌম্য ১১, মুমিনুল ১২, মিঠুন ১৭, সাকিব ১, মুশফিক  ১৯, মিরাজ ১৮, মাহমুদউল্লাহ ৩১, নাঈম ৫, তাইজুল ১, মোস্তাফিজ ২*; রোচ ০/১১, ওয়ারিক্যান ২/৪৩, চেজ ৩/১৮, বিশু ৪/২৬, গ্যাব্রিয়েল ১/২৪)।

উইন্ডিজ প্রথম ইনিংস: ২৪৬

ওয়েস্ট ইন্ডিজের লক্ষ্য ২০৪ রান।

বিশুর আঘাতে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহও

আউট হয়ে গেলেন শেষ স্বীকৃত ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ। ঠিক কি করতে গিয়েছিলেন নিজেও বলতে পারবেন না এ ব্যাটসম্যান। দেবেন্দ্র বিশুর বলে হাঁটু গেড়ে অনেকটা প্যাডেল সুইপের মতো করতে গেলে ব্যাটের কানায় লেগে আকাশে উঠে যায়। আর সহজেই তালুবন্দি করেন স্লিপে দাঁড়ানো শাই হোপ। তবে আউট হওয়ার আগে ৪৬ বলে মূল্যবান ৩১টি রান করেছেন এ ব্যাটসম্যান।

৩৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ  ৯ উইকেটে ১২৪ রান। শেষ দুই ব্যাটসম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ও তাইজুল ইসলাম দুইজনই ১ রানে ব্যাট করছেন। বাংলাদেশের লিড ছাড়িয়েছে ২০২ রানে।

বিশুর তৃতীয় শিকার নাঈম

প্রথম ইনিংসে দারুণ ব্যাট করেছিলেন নাঈম হাসান। দ্বিতীয় ইনিংসেও এমন কিছুরই আশা করেছিল বাংলাদেশ। তবে ৫ রানের বেশি করতে পারেননি তিনি। দেবেন্দ্র বিশুর আরও একটি দারুণ বলে আউট হয়েছেন তিনি। ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন নাঈম। ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় স্লিপে দাঁড়ানো শাই হোপের হাতে।

টিকলেন না মিরাজও

দিনের শুরুতেই আউট হয়েছিলেন মুশফিকুর রহীম। এরপর মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে লিড লম্বা করছিলেন মেহেদী হাসান। তবে দেবেন্দ্র বিশুর দারুণ এক বলে আউট হয়েছেন তিনি। রক্ষণাত্মক ভাবেই খেলতে চেয়েছিলেন মিরাজ। কিন্তু স্পিন করে বল বেড়িয়ে যাওয়ার সময় তার ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় উইকেটরক্ষক শেন ডরউইচের হাতে। ৩৫ বলে ১৮ রান করেছেন মিরাজ।

বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৯ ওভারে ৭ উইকেটে ১০৭ রান। ২০ রান নিয়ে ব্যাট করছেন মাহমুদউল্লাহ। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন নাঈম হাসান। বাংলাদেশের লিড ছাড়িয়েছে ১৮৫ রানে।

মুশফিকের বিদায়ে বড় চাপে বাংলাদেশ

তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় ওভারেই বিদায় নিয়েছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল মুশফিকুর রহীম। ফলে বড় বিপদেই পড়েছে টাইগাররা। জোনেল ওয়ারিক্যানের কিছুটা নিচু হওয়া বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে খেলতে গিয়েছিলেন মুশফিক। লাইন মিস করলে বোল্ড হয়ে যান এ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। ৩৯ বলে ১টি চারে ১৯ রান করেছেন মুশফিক।

১৯ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ৭১ রান। ৫ রান নিয়ে ব্যাট করছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মাহমুদউল্লাহ।

দ্বিতীয় দিন শেষে সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৩২৪ (৯২.৪ ওভার) (ইমরুল ৪৪, সৌম্য ০, মুমিনুল ব্যাটিং ১২০, মিঠুন ২০, সাকিব ৩৪, মুশফিক ৪, মাহমুদউল্লাহ ৩, মিরাজ ২২, নাঈম ২৬, তাইজুল ৩৯*, মোস্তাফিজ ২; রোচ ১/৬৩, গ্যাব্রিয়েল ৪/৭০, চেজ ০/৪২, ওয়ারিক্যান ৪/৬২, বিশু ১/৬০, ব্র্যাথয়েট ০/১৯)

দ্বিতীয় ইনিংস:  ৫৫/৫ (১৭ ওভার) ( ইমরুল ২, সৌম্য ১১, মুমিনুল ১২, মিঠুন ১৭, সাকিব ১, মুশফিক  ব্যাটিং ১১,  মিরাজ ব্যাটিং ০; রোচ ০/১১, ওয়ারিক্যান ২/২২, চেজ ২/১৬, বিশু ১/৫)।

উইন্ডিজ প্রথম ইনিংস: ২৪৬/১০ (৬৪ ওভার) (ব্র্যাথওয়েট ১৩, পাওয়েল ১৪, হোপ ১, আমব্রিস ১৯, চেজ ৩১, হেটমায়ার ৬৩, ডওরিচ ৬৩*, বিশু ৭, রোচ ২, ওয়ারিক্যান ১২, গ্যাব্রিয়েল ৬; মোস্তাফিজ ০/৪, মিরাজ ১/৬৭, তাইজুল ১/৫১, সাকিব ৩/৪৩, নাঈম ৫/৬১, মাহমুদউল্লাহ ০/৭)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here