নির্বাচনের আগে জমজমাট এফডিসি

0
160
শাকিব খান ও বুবলী, ফেরদৌস, পূর্ণিমা ও আরিফিন শুভ এবং মাহিয়া মাহী

চলচ্চিত্রের আঁতুড়ঘর হিসেবে পরিচিত এফডিসি এখন টেলিভিশন চ্যানেলের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের শুটিংয়ে জমজমাট থাকে বেশি। আরেকটা কথা প্রচলিত, এফডিসিতে শাকিব খানের শুটিং মানেই জমজমাট থাকে এই এলাকা। আর একসঙ্গে বেশ কয়েকটি সিনেমার শুটিং তো এখানে যেন এখন ঈদের চাঁদের মতো ঘটনা। এফডিসিতে জনপ্রিয় নায়ক-নায়িকার উপস্থিতি এখন আর শুটিংয়ের কারণে নয়, চলচ্চিত্রের বিভিন্ন সংগঠনের নানা ধরনের অনুষ্ঠানের কারণেই হয়ে থাকে। তবে গতকাল শনিবার ছিল একেবারে উল্টো চিত্র।

শাকিব খানের সিনেমার শুটিং তো ছিলই, সঙ্গে ছিল দেশের সিনেমার একসময়ের দাপুটে চিত্রনায়িকা চম্পার শুটিং। এফডিসিতে সিনেমার শুটিং নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করেছেন ফেরদৌস, পূর্ণিমা, আরিফিন শুভ, মাহিয়া মাহী ও বুবলীর মতো জনপ্রিয় সব তারকা। একসঙ্গে তিন সিনেমার শুটিংয়ে পুরো এফডিসি যেন প্রাণ ফিরে পায়।

‘জ্যাম’ সিনেমার শুটিংয়ে চম্পা। ছবি সংগৃহীত

‘জ্যাম’ সিনেমার শুটিংয়ে চম্পা। ছবি সংগৃহীত‘অবতার’ সিনেমার আইটেম গানের শুটিংয়ের জন্য ৪ নম্বর ফ্লোরে দৃষ্টিনন্দন একটি সেট বানানো হয়। ছবির শুটিং শেষ হলেও বাকি ছিল এই গানের শুটিংয়ের। এই গানের শুটিংয়ে অংশ নিতে দেখা গেল মাহিয়া মাহীকে। ‘অগ্নি ২’ সিনেমা ‘ম্যাজিক মামনি’র শিরোনামের একটি আইটেম গানে দেখা গিয়েছিল মাহীকে। এবার দর্শকের সামনে এই চিত্রনায়িকা আসবেন ‘রঙিলা বেবী’ হয়ে। আজ রোববার শুটিং করলেই গানটির পুরো কাজ শেষ হয়ে যাবে বলে জানান পরিচালক হাসান শিকদার।

বৃহস্পতিবার থেকেই জসিম ফ্লোরে চিত্রায়ণ শুরু হয় শাকিব খান ও বুবলী অভিনীত ‘একটু প্রেম দরকার’ ছবির। শনিবার রাত ১১টায় শেষ হয়েছে এই লটের কাজ। বিকেল চারটার পর শাকিব খান এলেও সকাল থেকে সেটে ছিলেন বুবলী। পরিচালক শাহীন সুমন জানালেন, ‘এখনো ছবির অর্ধেকেরও বেশি কাজ বাকি। সামনে নির্বাচন, তাই আপাতত ছবির কাজ আর করা সম্ভব হবে না। নির্বাচন শেষে আবার নতুন শিডিউলে কাজ শুরু করব।’

‘জ্যাম’ সিনেমার শুটিংয়ের জন্য এফডিসির প্রশাসনিক ভবনের সামনে এমন দৃশ্য তৈরি করেছেন পরিচালক। ছবি সংগৃহীত

প্রশাসনিক ভবনের সামনে যেতেই অচেনা মনে হলো পুরো এলাকা। চোখ বন্ধ করে কাউকে এনে ছেড়ে দিলেই মন করবে, জ্যামের মধ্যে ঢাকার কোনো সড়কে তিনি চলে এসেছেন। আসলে তা নয়, পরিচালক নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামুল তাঁর নতুন সিনেমা ‘জ্যাম’ এর শুটিং করতে বাস, ট্রাক, প্রাইভেট কার, সিএনজি চালিত অটোরিকশার এমন আয়োজন করেছেন। শুটিংয়ের ফাঁকে বললেন, ‘শহরের ব্যস্ততম সড়কে জনপ্রিয় নায়ক-নায়িকা নিয়ে শুটিং করা খুবই কষ্টসাধ্য। সাধারণ মানুষের ভিড়ের কারণে অনেক সময়ও নষ্ট হয়। তাই বাধ্য হয়ে এফডিসিতে শহরের ব্যস্ততম রাস্তা বানিয়েছি, রাস্তায় নানান ধরনের গাড়ি এনে জ্যামের পরিবেশ তৈরি করেছি।’

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (এফডিসি) এই ধরনের জমজমাট দৃশ্য বহুদিন ধরে দেখছেন না নিয়মিত আসা অনেকে। তাঁদের মতে, চলচ্চিত্রের শুটিংয়ে এফডিসির পরিবেশ তো আসলে এমনই থাকার কথা। এই এলাকা সিনেমার শুটিংয়ে জমজমাট থাকবে। গুণী পরিচালক সাঈদ আহমেদ আগের মতো ছবি না বানালেও নিয়মিত এফডিসি আসেন। আড্ডা দেন। পুরোনো সহকর্মীদের সঙ্গে চলচ্চিত্রের নানা বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করেন। তিনি বলেন, ‘বহুদিন পর এফডিসিতে অনেকগুলো শুটিং দেখে খুব ভালো লাগছে। এফডিসি যেন প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে পেল। প্রতিটি ফ্লোর এবং বাইরের সব জায়গা যেন শুটিংয়ে মেতে থাকে সেই আশা করি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here