তুষারের আরো এক জোড়া সেঞ্চুরি

0
116

প্রথম ইনিংসে অন্যদের ব্যর্থতার মধ্যে কেবল হেসেছিল তুষার ইমরানের ব্যাট। করেছিলেন ১০৪ রান। প্রতিপক্ষের রানের পাহাড়ে চাপা পড়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ঝলমলে তুষার অপরাজিত আছেন ঠিক ১০০ রান করে। প্রথম শ্রেণীতে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে দুইবার জোড়া সেঞ্চুরি হয়ে গেল তার।

রাজশাহীতে খুলনার ২১০ রানের জবাবে স্বাগতিকরা জড়ো করে ৫৫২ রান। আগের দিনে সেঞ্চুরির মিজানুর রহমানের পর সেঞ্চুরি করেন জহুরুল ইসলাম অমি। এই ডানহাতি অপরাজিত থাকেন ১৬৩ রান করে। এদিন রাজশাহীর বাকি ৭ উইকেটের সবগুলো উইকেটই পান অফ স্পিনার আফিফ হোসেন।

দ্বিতীয় ইনিংসে বিশাল বোঝা মাথায় নিয়ে ব্যাট করতে নেমেছিল খুলনা। ইনিংস হার এড়াতেই দরকার ৩৪২ রান। নেমেই শুরুটা হয় বিবর্ণ। ওপেনার রবিউল ইসলাম (০), আফিফ হোসেন (৬) দ্রুতই ফিরে যান। এরপর আরেক ওপেনার এনামুল হক বিজয়কে নিয়ে শুরু হয় তুষারের প্রতিরোধ। আর কোন বিপদ না ঘটিয়ে দিন পার করে দেন তারা। ১৬৭ বলে ৭২ রান করে অপরাজিত আছেন এনামুল।

১৩৩ বলে ১২টি চার আর এক ছক্কায় ঠিক ১০০ রান করে ফেলেছেন তুষার। প্রথম শ্রেনীতে জোড়া সেঞ্চুরি আছে ১৩জন বাংলাদেশির। তারমধ্যে তুষার একাই করলেন দুবার। প্রথম শ্রেনীতে এটি তুষারের ৩০তম সেঞ্চুরি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

খুলনা ১ম ইনিংস: ২১০

রাজশাহী ১ম ইনিংস: (দ্বিতীয় দিন শেষে ৪৪৬/৬) ১৪৭ ওভারে ৫৫২ (শান্ত ৪৬, মিজানুর ১১৫, জুনায়েদ ৪, ফরহাদ ৮৩, জহুরুল ১৬৩*, সাব্বির ৩৩ রেজা ২৫, সানজামুল ৬৪, দেলোয়ার ৩, তাইজুল ৩, শফিউল ০; আল আমিন ১/৯৫, জিয়া ০/৫০, রাজ্জাক ১/১৬৪, সৌম্য ০/৩৮, মেহেদি ০/৭৪, নাহিদুল ১/৫৪, আফিফ ৭/৬৬, রবি ০/৩)

খুলনা ২য় ইনিংস: ৫৩ ওভারে ১৮২/২ (রবি ০, এনামুল ৭২*, আফিফ ৬, তুষার ১০০*; শফিউল ১/২০, রেজা ১/৪০, দেলোয়ার ০/৩০, তাইজুল ০/৫৫, সানজামুল ০/২৮, সাব্বির ০/৮)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here