উপভোগের মন্ত্রে সাফল্য চান ফজলে রাব্বি

0
249

পনেরো বছর ধরে দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলছেন। মাঝে খেই হারিয়ে খেলাটেলা ছেড়ে নটা-পাঁচটা চাকরিও শুরু করে দিয়েছিলেন। ফজলে মাহমুদ রাব্বির জন্য জাতীয় দল নিশ্চিতভাবেই ছিল দূরের আকাশ। সেই অধরা স্বপ্ন হঠাৎ বাস্তব হলে রোমাঞ্চে ভাসারই কথা। জাতীয় দলের ক্যাম্পে রাব্বির প্রথম দিনটা কেটেছে তেমনই।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের দলে থাকা ৩০ বছর বয়সী রাব্বি আছেন অভিষেকের অপেক্ষায়। এই সিরিজে তার দায়িত্বটাও বেশ বড়সড়ো। চোটের কারণে দলের মূল ভরসা সাকিব আল হাসান না থাকায় তাকেই নির্বাচকরা ভেবেছেন বিকল্প। ব্যাট হাতেই যদিও তার নামডাক। কিন্তু বাঁহাতে স্পিনটাও করতে পারেন। গুরু দায়িত্ব পড়েছে তাই তার কাধেই। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের শুরুতেই এমন ভার নাকি টেরই পাচ্ছেন না এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান, ‘না আমার কাছে ওইরকম মনে হচ্ছে না। এই যে আপনাদের সঙ্গে কথা হচ্ছে, আমি উপভোগ করছি এইসব।’

অনুশীলনে চাপহীন, ফুরফুরে আছেন। কথাবার্তায় চনমনে ভাব, ব্যাট-বল হাতে মাঠে নেমেও কি এই ভাব রাখা যাবে? রাব্বি এই উত্তর রেখে দিলেন আগামীর কাছে, ‘আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। দেখি না কি হয় (হাসি)। আমি তো এখনও খেলি নি। খেললে বুঝা যাবে আমি কতোটা চাপহীন ক্রিকেট খেলতে পারব।’

এর আগেও বাংলাদেশ দলের প্রাথমিক স্কোয়াডে ছিলেন তিনি। চূড়ান্ত দলে এবারই প্রথম। শুরুর অভিজ্ঞতা তার কাছে বেশ আনন্দের, ‘একদম ভাল, সবাই সবার কাজ নিয়ে খুব চিন্তা করে। কার কি দায়িত্ব, সেটা সবাই খুব ভাল জানে। আমি দেখছি, শেখার চেষ্টা করছি। তারা এক একজন কতোটা সিরিয়াস, এটা আমাকে খুবই অনুপ্রাণিত করছে।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের কঠিন জমিনে রাব্বির শুরুর পরিস্থিতিটা অনুকূলেই বলা চলে। ঘরের মাঠ, চেনা পরিবেশে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাচ্ছেন জিম্বাবুয়েকে। এই কন্ডিশনে নামেভারে যারা ঠিক বাংলাদেশের সঙ্গে তাল মেলানোর মতো নয়। তবু প্রতিপক্ষকে হালকা করে রাব্বি এক্ষেত্রেও চাপটা নিজের কাঁধে নিতে চাইলেন না, ‘আমার একদমই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার অভিজ্ঞতা নেই। আমি জানি না জিম্বাবুয়ে, দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া বা অন্য কোন দলের সঙ্গে খেলা কেমন। আমি আমার মতই খেলব, যদি সুযোগ পাই। আমি কার সঙ্গে খেলছি এটা বড় না। কি খেলছি এটাই বড়।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here